বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে সরকারের গাফিলতি স্পষ্ট হয়েছে : গণতন্ত্র মঞ্চ

সিলেটের সময় ডেস্কঃ

জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণে গত মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) সৃষ্ট জনদুর্ভোগের জন্য সরকার এবং বিদ্যুৎ বিভাগের গাফিলতি ও অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছে সাত দলীয় রাজনৈতিক জোট গণতন্ত্র মঞ্চ। এ দুর্ভোগের পেছনে জাতীয় গ্রিডের সঞ্চালন ব্যবস্থা সংস্কার না করাকে দায়ী করে আজ বুধবার গণতন্ত্র মঞ্চের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ এক যৌথ বিবৃতিতে এই কথা বলেন।

গণতন্ত্র মঞ্চের দল সাতটি হলো- জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি), নাগরিক ঐক্য, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, গণসংহতি আন্দোলন, গণঅধিকার পরিষদ, ভাসানী অনুসারী পরিষদ ও রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন। যৌথ বিবৃতিতে গণতন্ত্র মঞ্চ বলে, ব্যাপক এই বিভ্রাটের মধ্য দিয়ে সরকার ও বিদ্যুৎ বিভাগের গাফিলতি, অব্যবস্থাপনা স্পষ্ট হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, বিইআরসির বিভিন্ন গণশুনানিসহ বিভিন্ন সময়ে নেতৃবৃন্দ ও বিশেষজ্ঞরা জাতীয় গ্রিডের বিভিন্ন সঞ্চালন ব্যবস্থার ত্রুটিসহ ব্যবস্থাপনাগত অদক্ষতা এবং বিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে এর সক্ষমতার সমন্বয়ের পরামর্শ ও এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। কিন্তু সরকার ও কর্মকর্তারা এ বিষয়ে নজর না দিয়ে সময়ে সময়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোতে অধিকতর মনোযোগী থেকেছেন।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এভাবে জাতীয় গ্রিডের সংস্কার কাজ ফেলে রেখে জাতীয় বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থাপনা ও লাইনকে অনিরাপদ করে রাখা হয়েছে। এ কারণে জাতীয় গ্রিডের পূর্বাঞ্চলীয় লাইন বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে।

এ ধরণের গাফিলতি, অব্যবস্থাপনার জন্য দায়ীদের অবিলম্বে বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে গণতন্ত্র মঞ্চ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, জনসম্মতিহীন এই সরকারের সীমাহীন দুর্নীতি, লুটপাট ও অব্যবস্থাপনার কারণে দেশের বিদ্যুৎখাতে অরাজকতা ও চরম সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। দেশের জ্বালানি নিরাপত্তা হুমকির মুখে। লোডশেডিংয়ে সারা দেশের মানুষ অতিষ্ঠ। জ্বালানি সংকটের কারণে কল-কারখানা এমনকি সার কারখানা পর্যন্ত বন্ধ হয়ে গেছে।

এ পরিস্থিতিতে আগামী ১০ অক্টোবর বেলা সাড়ে ৩টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সরকার ও শাসনব্যবস্থা পরিবর্তনের লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধ হোন এবং রাজনৈতিক সভা-সমাবেশে বাধা, হামলা-মামলা, দমন-পীড়ন, গুলি-হত্যা বন্ধের দাবিতে গণতন্ত্র মঞ্চের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য