‘ফিলিস্তিনিদের ওপর বলপ্রয়োগ বাড়িয়েছে ইসরায়েলি পুলিশ’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ঃ

ইসরায়েলি পুলিশের হাতে গুরুতরভাবে আহত এক ফিলিস্তিনি ব্যক্তির পরিবার তাঁর বিরুদ্ধে অতিরিক্ত বল প্রয়োগের অভিযোগ করেছে। গত সোমবার এক কবরস্থানে আত্মীয়ের দাফনের সময় ইসরায়েলি বাহিনীর ছোড়া রাবার বুলেটে খুলি ফেটে যায় নাদের আল-শরিফ (৫০) নামের ওই ব্যক্তির। তিনি বর্তমানে হাসপাতালে অচেতন অবস্থায় রয়েছেন।

গত মাসে আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে ইসরায়েলি পুলিশের অভিযানে নাদেরের আত্মীয় ওয়ালিদ আহত হন।

পরে তিনি মারা যান।

ইসরায়েলি পুলিশ বলেছে, কবরস্থান ও অন্যান্য জায়গায় ‘সহিংস বিশৃঙ্খলা’ শুরু হওয়ার পর তারা পদক্ষেপ নিয়েছিল। তাদের কর্মীদের লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়েছিল। অন্যদিকে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, নাদের কবরে মাটি দেওয়া শেষ করার পরই ইসরায়েলি পুলিশ তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। পরিবারের দাবি, তিনি অন্যায় কিছু করেননি।

অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের ফিলিস্তিনিদের অভিযোগ, সম্প্রতি ইসরায়েলি বাহিনীর অত্যাচার বেড়েছে। দৃশ্যত ইসরায়েলে টানা কয়েকটি হামলার পর এ প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এরই মধ্যে নতুন করে ঘটল এ ঘটনা। তবে ইসরায়েলি পুলিশ সব সময়ই নির্মমতার অভিযোগ অস্বীকার করে থাকে। তারা উল্টো দাবি করছে, সাম্প্রতিক ঘটনার জন্য ‘দাঙ্গাকারীরাই’ দায়ী। তারা নিরাপত্তাকে সমুন্নত রাখবে বলেও উল্লেখ করেছে পুলিশ।

কবরস্থানে হামলার ঘটনার মাত্র তিন দিন আগেই আলজাজিরার সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া চলাকালে কফিন বহনকারীদের ওপর হামলা চালিয়েছিল ইসরায়েলি পুলিশ। ঘটনাটি স্থানীয় পর্যায়ের গণ্ডী ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক মহলেও নিন্দার ঝড় তুলেছিল।

নাদের আল-শরিফের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, তাঁদের মনে হচ্ছে তাঁরা নিরাপত্তা বাহিনীর আক্রমণের মুখে রয়েছেন। শরিফকে হাসপাতালে নেওয়ার পর পরিবারটির আরেক আত্মীয় পুলিশের হামলার শিকার হয়েছেন। ওই আক্রমণটিও বিনা উসকানিতে বলে দাবি পরিবারের।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, এপ্রিলে আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে পুলিশের ছোড়া রাবার বুলেটে আহত হন ওয়ালিদ আল-শরিফ। কিন্তু পুলিশের দাবি, তাদের দিকে পাথর ছোড়ার সময় পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পান ওয়ালিদ। মস্তিষ্কে গুরুতর আঘাত নিয়ে গত সপ্তাহে মারা যান তিনি।

সূত্র:বিবিসি

 

এ বিভাগের অন্যান্য