সিলেটে একদিনে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ৪

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

সিলেটে একদিনে সড়কে প্রাণ ঝরলো তিন মোটরসাইকেল আরোহী ও এক শিশুর। এরমধ্যে ট্রাকচাপায় শিশু ও এক মোটরসাইকেল আরোহী এবং বাসচাপায় আরেকজন এবং লেগুনার সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে আরও এক আরোহীর মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (১৫ মে) সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের নগরের আখালিয়া এলাকায়, সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুরে, ওসমানীনগরের গয়নাঘাটে এবং সিলেট-ভোলাগঞ্জ সড়কে এম সাইফুর রহমান কলেজের সামনে পৃথক দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নগরের মদিনা মার্কেট আনসার ক্যাম্পের সামনে পাথর বোঝাই ট্রাকের চাপায় ফয়জুর রহমান (২২) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। ফয়জুর সিলেট সদর উপজেলার সোনাতলা সাদিপুর গ্রামের মৃত কুতুব উদ্দিনের ছেলে ও ব্যবসায়ী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জাফলং থেকে ছেড়ে আসা পাথর বোঝাই ট্রাক একটি মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে ওই যুবক নিহত যান। ঘটনার পরপরই ট্রাকচালককে আটক করেছে স্থানীয়রা। বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ করে গাড়ি ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে এসএমপির জালালাবাদ থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে এবং ট্রাকচালককে নিজেদের হেফাজতে নেয়।

নিহত ফয়জুরের ভগ্নিপতি আব্দুর রহিম বলেন, তার শ্যালক নগরের আম্বরখানা শামস সুপার মার্কেটে কাপড়ের ব্যবসা করতেন। তিনি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বাড়িতে যাচ্ছিলেন। এ ঘটনায় এক আরোহী আহত হয়েছেন।

এদিন বিকেলে সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের জৈন্তাপুর উপজেলার হরিপুর পাখিটিকি এলাকায় লেগুনার সঙ্গে মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে রাশেদ আহমদ (২২) নামে এক যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ সময় আহত হন মোটরসাইকেলের অপর আরোহী। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। রাশেদ সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার বাসিন্দা।

রোববার ভোরে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের ওসমানীনগর উপজেলার গয়নাঘাটে হানিফ পরিবহনের চাপায় আব্দুল্লাহ আল মামুন হাওলাদার (২৫) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হন। তিনি পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া থানার নদমোল্লা গ্রামের বাদল হাওলাদারের ছেলে। এ দুর্ঘটনায় মামুনের সঙ্গে থাকা মিরাজ হোসেন (৩০) নামে এক যুবক আহত হয়েছেন। তাকে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার পর বাস চালককে আটক করেছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, সিলেটগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাস মোটরসাইকেলটিকে পেছন দিক থেকে চাপা দেয়। এতে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে মামুনকে মৃত ঘোষণ করেন চিকিৎসক। আর গুরুতর আহত মিরাজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হতাহতরা স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ঠিকাদারির কাজ করতেন বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

শেরপুর হাইওয়ে থানার অ্যাসিস্ট্যান্ট টাউন সাব-ইন্সপেক্টর (এটিএসআই) বিধু ভূষণ দাস বাংলানিউজকে বলেন, দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেলটি বাসের নিচে চাপা পড়ায় বাসটি ঘটনাস্থলেই আটকে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বাসচালককে আটক করে। আটক বাসচালক আমিরুল ইসলাম চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার আলীনগর মাঝপাড়া গ্রামের মৃত ইকদিল হোসেনের ছেলে।

এদিকে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে ট্রাকচাপায় ফরিদা (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। রোববার দুপুর দেড়টার দিকে সিলেট-ভোলাগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মহাসড়কের এম সাইফুর রহমান কলেজ পয়েন্টে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ফরিদা কোম্পানীগঞ্জের বুড়দেও গ্রামের ফিরোজ মিয়ার মেয়ে।

স্থানীয় সূত্র ও পুলিশ জানায়, ট্রাকটি আরেকটি ট্রাককে অতিক্রম করতে গেলে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে থাকা শিশুটিকে চাপা দেয়। তাকে উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ ট্রাকটি জব্দ করেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য