শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

আজ ৭ই মে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু তনয়া, দেশরত্ন, জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। ২০০৭ সালের আজকের এই দিনে তৎকালীন তথাকথিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে অবরুদ্ধ গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে দেশরত্ন শেখ হাসিনা এই বাংলার মাঁটিতে ফিরে আসেন। তাঁর অসীম সাহসিকতা ও যোগ্য নেতৃত্বে দেশ এগিয়েছে অনেক দূর। শেখ হাসিনার দ্বিতীয় প্রত্যাবর্তন দিবস তাই বাংলাদেশের ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা।
ধৈর্য ও সাহসের প্রতিমূর্তি শেখ হাসিনা গণতন্ত্রের মানসকন্যা,জননেত্রী শেখ হাসিনা । পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, গভীর সমুদ্রবন্দর প্রভৃতি বড় প্রকল্পের বাস্তবায়নই মনে করিয়ে দিচ্ছে শেখ হাসিনা নেতৃত্বের গৌরবজনক আসনে সমাসীন।
গত ১৩ বছরের বেশি সময় একনাগাড়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছেন বলেই বিশ্বব্যাংক, আইএমএফসহ বিশ্বের বড় বড় গবেষণাপ্রতিষ্ঠান বলছে, এই ধারা ও পথে যাত্রা অব্যাহত থাকলে ২০৩৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পৃথিবীর ২৫তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম সারির পত্রিকা ‘শিকাগো ট্রিবিউন’ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে মালয়েশিয়ার মাহাথির মোহাম্মদ এবং সিঙ্গাপুরের লি কুয়ান ইউয়ের ছাঁচে একজন শক্তিশালী প্রশাসনিক নেতা হিসেবে উল্লেখ করেছে। ‘শিকাগো ট্রিবিউন’
১৮ এপ্রিল ‘বাংলাদেশের সাফল্য যেভাবে হেনরি কিসিঞ্জারকে ভুল প্রমাণ করেছে’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত বিশেষ প্রতিবেদনে শেখ হাসিনাকে নিয়ে এমন মন্তব্য করে।

পত্রিকাটি বলেছে, স্থিতিশীল গণতন্ত্র থাকার পাশাপাশি, নারী শিক্ষায় বিনিয়োগ এবং শ্রমশক্তিতে নারীর ব্যাপক হারে অংশগ্রহণের কারণে মাথাপিছু আয় এবং প্রবৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছে। সাবেক সেক্রেটারি অফ স্টেট হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে বলেছিলেন “তলাবিহীন ঝুড়ি” অথচ এই মন্তব্য আজ মিথ্যে প্রমানিত করেছে বাংলাদেশ।

এ বিভাগের অন্যান্য