বিয়ের চাপ দেওয়ায় প্রেমিকাকে ধর্ষণ পরে হত্যা

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

একই ইটভাটায় কাজ করার সুবাদে ৪১ বছর বয়সী নারীর সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে মিঠুন আলীর। নিজের বয়স ২৮ হলেও ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়েন প্রেমে। তিন মাসের সম্পর্কে বিয়ের চাপ দিতে থাকেন প্রেমিকা। এ নিয়ে সম্পর্কে কিছুটা ফাটল ধরে। তবু বিয়ের চাপ দেওয়ায় প্রেমিকাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিঠুন। শেষে আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণের পর জয়নবকে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়ে যান প্রেমিক।
এ ঘটনায় গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এসব কথা স্বীকার করেন মিঠুন। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক।

তিনি বলেন, বিয়ের জন্য চাপ দেওয়ায় জয়নবকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিঠুন। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৭ এপ্রিল মিজান ও জুলেখা নাম ব্যবহার করে স্বামী-স্ত্রীর ভুয়া পরিচয়-ঠিকানা দিয়ে রাজশাহী নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকার হোটেল ড্রিম হ্যাভেনের ৪০৩ নম্বর কক্ষে ওঠেন তারা। হোটেলে উঠে প্রথমে ধর্ষণের পর জয়নবকে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার পর পালিয়ে যান মিঠুন।

আরএমপি কমিশনার আরো বলেন, এ ঘটনায় রাজপাড়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন নিহতের ভাই। এর পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার রাতে নাটোরের আগদিঘা গ্রাম থেকে অভিযুক্ত মিঠুনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জয়নবকে হত্যার কথা স্বীকার করেন।

গ্রেফতারের পর আইনি প্রক্রিয়া শেষে মঙ্গলবার দুপুরে মিঠুনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মিঠুনই একমাত্র আসামি।

এ বিভাগের অন্যান্য