ইউক্রেনে হামলার মাত্রা বাড়িয়েছে রুশ বাহিনী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ঃ

কয়েক দিন তুলনামূলকভাবে হামলার মাত্রা কম থাকার পর ইউক্রেনে আক্রমণ আবার জোরদার করেছে রুশ বাহিনী। সেনা ও অস্ত্রসম্ভার ক্রমে পূর্ব দিকে সরিয়ে নেওয়ার মধ্যে আবার দূরের পশ্চিম প্রান্তকে লক্ষ্যবস্তু করছে তারা। আজ সোমবার বিকেল পর্যন্ত দুই দিনে কয়েকটি শহরে গোলা ও বোমা হামলায় অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা ইউক্রেনের বিভিন্ন স্থানের অন্তত ১৬টি সামরিক লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালিয়েছে।

পশ্চিম ইউক্রেনের শহর লভিভে সোমবার রাশিয়ার বিমান হামলায় অন্তত সাতজন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। উত্তর, দক্ষিণ ও পূর্বের বিভিন্ন শহরে রাশিয়ার প্রচণ্ড হামলা থেকে বাঁচতে সাম্প্রতিক কয়েক সপ্তাহে অনেক ইউক্রেনীয় পশ্চিম সীমান্তের লভিভ শহরে আশ্রয় নিয়েছে। গতকালই দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে গোলাবর্ষণে প্রাণ হারিয়েছে তিনজন। এ ছাড়া রাজধানী কিয়েভেও বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে।

ইউক্রেনের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় রাশিয়ার বিখ্যাত রণতরি মস্কোভা ডুবে যাওয়ার পর শহরগুলোর ওপর হামলার তীব্রতা বাড়িয়েছে দেশটি। রাশিয়া পশ্চিমের লিভভে হামলা চালানোর কিছু আগে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি অভিযোগ করেন, রাশিয়ার সীমান্তবর্তী পুরো পূর্বাঞ্চলকে ধ্বংস করতে চায় মস্কো।

লভিভ ও খারকিভের চিত্র

লিভভে হামলার পর শহরটির উত্তর-পশ্চিমে একটি গাড়ি মেরামতের দোকানের ছাদ থেকে কালো ধোঁয়া উড়তে দেখা যায়। আঞ্চলিক গভর্নর ম্যাক্সিম কোজিস্কি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে বলেছেন, ‘হামলার পর স্থানটিতে আগুন ধরে যায়। আগুন নেভানোর কাজ চলছে। ওই স্থাপনাটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ’

খারকিভে একটি গোলা শিশুদের খেলার মাঠে আঘাত হানে। এতে তিনজন নিহত হয়। একটি মেডিক্যাল ইমার্জেন্সি সেন্টারের প্রধান ভিক্টর জাবাশতা ইউক্রেনের একটি বার্তা সংস্থাকে বলেছেন, মানবিক সহায়তা বিতরণ কেন্দ্রে আরেকটি হামলায় একজন নিহত এবং আরো ছয়জন আহত হয়েছে। খারকিভে অবস্থানরত এএফপি সাংবাদিকরা সোমবার সকালে ধারাবাহিক বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন।

পূর্বাঞ্চলীয় শহর রুশ দখলে

এদিকে রবিবার রাতে বড় ধরনের হামলা চালিয়ে রুশ বাহিনী পূর্বাঞ্চলীয় শহর ক্রেমিনা দখল করে নিয়েছে বলে স্থানীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। লুহানস্কের আঞ্চলিক গভর্নর সের্গেই গেইদে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে করা পোস্টে বলেছেন, ‘রাশিয়ার সেনারা ইতিমধ্যে বিপুল পরিমাণ সামরিক সরঞ্জাম নিয়ে সেখানে প্রবেশ করেছে। আমাদের যোদ্ধারা নতুন একটি অবস্থানে ফিরে গেছে। ’

বন্দি বিনিময়ে পাল্টাপাল্টি ভিডিও

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন দুজন পুরুষের ভিডিও সমপ্রচার করেছে। তাতে বলা হয়েছে, ওই দুজন যুক্তরাজ্যের নাগরিক। ইউক্রেনের পক্ষে যুদ্ধ করার সময় রুশ সেনাদের হাতে বন্দি হয়েছেন। ইউক্রেনের রুশপন্থী ধনকুবের ভিক্টর মেদভেদচুকের মুক্তির বিনিময়ে তাদের মুক্তি দেওয়া হবে বলে জানানো হয়। পাশাপাশি যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীকে তাদের মুক্তির ব্যাপারে আলোচনার জন্য বলা হয়। ভিক্টর মেদভেদচুকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ ছিলেন। সম্প্রতি ইউক্রেন তাকে বন্দি করে।

এদিকে ওই ভিডিও সম্প্রচারের কিছু সময় পর ইউক্রেনের নিরাপত্তা বাহিনী ভিক্টর মেদভেদচুকের একটি ভিডিও প্রকাশ করে। তাতে মেদভেদচুকের মুক্তির বিনিময়ে মারিউপোলে আটকে থাকা ইউক্রেনের বেসামরিক নাগরিক ও সেনাদের মুক্তির শর্ত দেওয়া হয়।

সূত্র : এএফপি ও বিবিসি

এ বিভাগের অন্যান্য