‘আমরা স্পিন খেলতে পারি না’- মমিনুলের কথায় সংবাদ সম্মেলন স্তব্ধ!

খেলাধুলা ডেস্ক ঃ

উপমহাদেশ মানেই স্পিন―এটা বহু বছর ধরে ক্রিকেটবিশ্বে প্রচলিত। ভারত-পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কায় অনেক আগে থেকেই পেস সহায়ক উইকেট আছে। কিন্তু বাংলাদেশে নেই। বছরের পর বছর ঘূর্ণি আর ধীরগতির উইকেটে খেলে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

মিরপুরের উইকেট নিয়ে সমালোচনা এবং হাসি-ঠাট্টা তো নিয়মিতই চলে। সেই মাঠে সারা বছর খেলে যাওয়া টেস্ট অধিনায়ক মমিনুল হক বললেন, তারা নাকি স্পিন খেলতে পারেন না! মমিনুলের এই বক্তব্য শুনে হতবাক হয়ে যান সাংবাদিকরাও!

আজ সোমবার পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টের চতুর্থ দিনেই বাংলাদেশ হেরে গেছে ৩৩২ রানে। ২-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশের লজ্জাও জুটেছে। পুরো সিরিজে বাংলাদেশি ব্যাটারদের কুপোকাত করেছেন প্রোটিয়া স্পিনাররা! দুই টেস্টে স্বাগতিক স্পিনাররাই নিয়েছেন ২৯ উইকেট! ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের অধিনায়কের সরল স্বীকারোক্তি, ‘এটা আগে থেকে সবাই জানে। আমরা স্পিনে খুব বেশি ভালো খেলি না। এটা শুনতে হয়তো খারাপ লাগতে পারে। কিন্তু দু-একজন ছাড়া আমরা খুব ভালো স্পিন খেলি না। ‘

মমিনুলের এই বক্তব্যের পর ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন কিছু সময়ের জন্য স্তব্ধ হয়ে যায়। অধিনায়কের বক্তব্য কারো হজম হচ্ছিল না। পরে নীরবতা ভেঙে মমিনুলই আবার শুরু করেন, ‘ভালো খেলে হয়তো…কিন্তু কোন দিক দিয়ে খেলতে হবে, সেটা হয়তো আমরা বুঝি না। এসব জায়গায় আমাদের অনেক উন্নতি করতে হবে। ‘

স্পিন ভালো না খেলার পেছনে আরেকটি অজুহাতও দাঁড় করান মমিনুল, ‘আমাদের দেশে যে উইকেট সেই তুলনায় এখানকার উইকেট কিন্তু ভিন্ন। বিশেষ করে উপমহাদেশের উইকেট। উপমহাদেশে বা আমাদের দেশে সাইড স্পিনটা বেশি কার্যকরী। কিন্তু এসব জায়গায় সাইড স্পিন কাজে আসে না। ওভার স্পিন বেশি কার্যকরী। আমাদের বোলাররা সাইড স্পিন বল করে, ব্যাটসম্যানরা সাইড স্পিন খেলে অভ্যস্ত। এখানে এসে দুই দিনেই সবাই ওভার স্পিনে ভালো করবে…সেটা করতে গেলে অনেক কৌশলগত পরিবর্তন করতে হয়, যেটা করতে গেলে আগের কৌশলে সমস্যা হতে পারে। এই কারণে হতে পারে। ‘

এ বিভাগের অন্যান্য