হিজড়া বানাতে ছাত্রের গোপনাঙ্গ কাটার অভিযোগ

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

মাদারীপুরে ‘হিজড়া’ বানাতে ১৭ বছরের এক মাদ্রাসাছাত্রের গোপনাঙ্গ কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে একটি সংঘবদ্ধ চক্রের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় আহত মাদ্রাসাছাত্রকে সোমবার (৪ এপ্রিল) দুপুরে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেছে তার পরিবার।

ভুক্তভোগী মাদারীপুর সদর উপজেলার খোয়াজপুর ইউনিয়নের চর গোবিন্দপুর এলাকার বাসিন্দার ছেলে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার রিয়াদ মাহমুদ।

ভুক্তভোগীর পরিবার সূত্রে জানা যায়, একই এলাকার খলিল নপ্তীর ছেলে ভ্যানচালক নুরু নপ্তীর সঙ্গে সখ্যতা ছিল ভুক্তভোগীর। এদিকে নুরু নপ্তীর ভ্যানে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করত মাদারীপুরের মঠেরবাজার এলাকার জুঁই হিজড়া ও তার দলবল। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে ভুক্তভোগীকে জুঁই হিজড়ার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন নুরু।

গত বৃহস্পতিবার ভুক্তভোগীকে চিকিৎসার কথা বলে জুঁই হিজরা নুরু নপ্তীকে দিয়ে খুলনা জেলার একটি হাসপাতালে পাঠান। পরবর্তী সময়ে সেখানে নিয়ে মাদ্রাসাছাত্রকে জোরপূর্বক অচেতন করে তার গোপনাঙ্গ কেটে ফেলা হয়। ঘটনার পরে মাদ্রাসাছাত্রের জ্ঞান ফিরলে বাসায় যাওয়ার জন্য কান্নাকাটি করেন। শুক্রবার বিকালে নুরু নপ্তী তাকে মাদারীপুর শহরের পানিছত্র এলাকায় ফেলে পালিয়ে যান।

ভুক্তভোগী বলেন, ‘আমাকে চিকিৎসার নাম করে নুরু নপ্তী ও জুঁই হিজড়া এই সর্বনাশ করছে। আমাকে হিজড়া বানাতে ওদের একটি সংঘবদ্ধ চক্র আমার গোপনাঙ্গ কেটে ফেলেছে। আমার জীবন শেষ করে দিয়েছে। আমার মতো আর কোনো ভাইয়ের যেন এমন ক্ষতি না হয়। প্রশাসনের কাছে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।’

এদিকে ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত জুই হিজড়া ও নুরু নপ্তী পলাতক রয়েছেন।

মাদারীপুর সদর থানার ওসি কামরুল হাসান মিয়া বলেন, ‘ঘটনা শুনে পুলিশ হাসপাতালে পরিদর্শন করেছে। ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’
-রাইজিংবিডি

এ বিভাগের অন্যান্য