সরকারের উচিত বিএনপির হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করা

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, চাল, ডাল, তেলসহ প্রতিটি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য যে হারে বেড়েছে তাতে সাধারণ নিম্ন ও মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। এ জন্য সরকারের উদাসীনতা ও চরম ব্যর্থতা দায়ী। অথচ সরকারের মন্ত্রীরা এ জন্য বিএনপিকে দায়ী করছেন।

‘দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে বিএনপির ব্যবসায়ীরা জড়িত’―সরকারের একজন মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় না থেকেও যদি সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করে তাহলে সরকারের উচিত বিএনপির হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করা।

আজ রবিবার বেলা সাড়ে ১১টা তার নিজ জেলা ঠাকুরগাঁওয়ের কালীবাড়ির বাসভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। এ সময় জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সাল আমিন, সহসভাপতি আল মামুন, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফসহ বিএনপি অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, আওয়ামী লীগ হাস্যকর কথা বলে জনগণের সঙ্গে তামাশা করছে। দ্রব্যমূল্য ঊর্ধগতির কারণে মানুষ খেতে পারছে না অথচ উদ্ভট কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করছে। যেহেতু এই সরকার জনগণের দ্বারা নির্বাচিত নয়, জনগণের প্রতি তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। সে জন্য তারা এ ধরনের সাহস দেখায়, মশকরা করে। তাই ব্যর্থতার দায়ভার নিয়ে সরকারের এখনই পদত্যাগ করা উচিত।

এই সরকার রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে টিকে রয়েছে। তারা বিচার বিভাগ, আইন-শৃঙ্খলা ও প্রশাসনকে নিয়ন্ত্রণ করে রাষ্ট্রের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানকে ব্যবহার করছে অন্যায়ভাবে। আজকে ভিন্ন দল যারা করছে এবং জনগণের পক্ষে কথা বলার চেষ্টা করছে তাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে আইন তৈরি করে। সাধারণ মানুষের যেসব কথা বলে তা নিয়ন্ত্রণ করতে সরকার এখন নতুন নীতিমালা তৈরি করেছে। মানুষের কথা বলা ও মত প্রকাশের সাংবিধানিক যে অধিকার, যে স্বাধীনতা সেটাকে নিয়ন্ত্রণ করতে সরকার নীতিমালা তৈরি করতে যাচ্ছে।

ফখরুল আরো বলেন, যুদ্ধ কখনোই সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ বন্ধে অবিলম্বে সকলকে জাতিসংঘের প্রস্তাব মেনে নেওয়া উচিত। সরকার যুদ্ধ বন্ধের ক্ষেত্রে কোনো উল্ল্যেখযোগ্য অবস্থান নিতে পারেনি।

 

এ বিভাগের অন্যান্য