নাটোরে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ৫

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নাটোরে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টার দিকে ও দুপুর ১টার দিকে সদর উপজেলার একডালা এলাকায় এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র আবুল মেম্বার গ্রুপ ও ইউসুফ আলী গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

আবুল জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজানের সমর্থক এবং ইউসুফ নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের সমর্থক। এ সময় ইউসুফ গ্রুপের সমর্থকরা শিহাব নামের এক কর্মীকে হাতুড়ি ও রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করে।

এ ঘটনার জেরে দুপুরে আবুল সমর্থকরা শহর থেকে আরো কয়েকজনকে নিয়ে গিয়ে ইউসুফ সমর্থকদের ওপর হামলা করলে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের চারজন আহত হয়।

আহতদের মধ্যে জনি নামের একজনের পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের মধ্যে আহত শিহাবকে নাটোর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সংঘর্ষের সময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রড, লোহার পাইপ, হাতুড়িসহ চারটি মোটরসাইকেল জব্দ করে পুলিশ। তবে এ ঘটনায় এখনো কাউকে আটক করতে পারেনি। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার পিএস আকরামুল ইসলাম আকরাম জানান, সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম দেশের বাইরে অবস্থান করছেন।

 

শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন, ৭ই মার্চের কর্মসূচিতে নাটোর শহরে আসার পথে ইউসুফ ও তার লোকজন শিহাবের ওপর হামলা চলিয়ে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী একজোট হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে ইউসুফের অফিস থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে নাটোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনসুর রহমান জানান, সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চারটি মোটরসাইকেল এবং দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কেউ মামলা দায়ের করেনি।

 

এ বিভাগের অন্যান্য