এটা চেরনোবিলের চেয়েও খারাপ হতে পারে: জেলেনস্কি

আন্তর্জাতিক / এ

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি তাঁর দেশের জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ‘রাশিয়ার হামলার’ প্রেক্ষাপটে বিশ্ব সম্প্রদায়কে ‘অবিলম্বে পদক্ষেপ’ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সম্ভাব্য রুশ গোলায় কেন্দ্রটিতে স্থানীয় সময় শুক্রবার খুব ভোরে আগুন লেগে যায়।

ইউক্রেনের জাপোরিঝিয়া ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র।

ভলোদিমির জেলেনস্কি টুইটারে পোস্ট করা এক ভিডিওতে বলেন, ‘ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আগুন লেগেছে।

’ জেলেনস্কি রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইচ্ছাকৃতভাবে কেন্দ্রটির ছয়টি চুল্লিতে তাপীয় ইমেজিং সজ্জিত ট্যাঙ্ক দিয়ে গুলি করার অভিযোগ করেন।

১৯৮৬ সালের চেরনোবিল কেন্দ্রের ‘বৈশ্বিক বিপর্যয়ের’ স্মৃতি তুলে তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, জাপোরিঝিয়ায় দুর্ঘটনা ঘটলে তার পরিণতি আরো অনেক বেশি খারাপ হবে।

জেলেনস্কি বলেন, ‘ইউরোপীয়রা, জেগে উঠুন। আপনাদের নেতাদের বলুন, রাশিয়ার বাহিনী ইউক্রেনের পারমাণবিক কেন্দ্রে গুলি করছে। ‘

জেলেনস্কি বলেছেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইইউ, জার্মানি এবং পোল্যান্ডের নেতাদের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। তারপরও তিনি সাধারণ নাগরিকদের তাঁদের নিজ নিজ দেশের নেতাদের সতর্ক করে দেওয়ার আহ্বান জানান।

‘রাশিয়ার প্রোপাগান্ডা অতীতে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, তারা বিশ্বকে পারমাণবিক ছাইয়ে ঢেকে দিতে পারে। এখন এটি কেবল সতর্কতা নয়, বরং বাস্তব’, বলেন জেলেনস্কি।

অগ্নিনির্বাপক কর্মীরা কেন্দ্রের আগুন নেভাতে শুরু করেছে। জরুরি সেবা বিভাগ বলেছে, রাশিয়ার সেনাদের গোলাবর্ষণের পরে সেখানকার একটি প্রশিক্ষণ ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। অগ্নিনির্বাপক কর্মীরা ভবনটিতে পৌঁছানোর আগে ঘণ্টাখানেক ধরে আগুন জ্বলছিল। কর্তৃপক্ষ আগে জানিয়েছিল, রুশ সেনারা তাদের আগুন নেভাতে বাধা দিচ্ছে।

বিবিসি ইউক্রেনীয় বলছে, এনারগোদার মেয়র দিমিত্রো অরলভ একটি সম্প্রচারক মাধ্যমকে বলেছেন, পারমাণবিক কেন্দ্রটির কাছে চলা যুদ্ধ থেমেছে। কেন্দ্রটির কাছে কয়েক ঘণ্টা ধরে ভারী গোলাবর্ষণ চলছিল।

ইউক্রেনের জরুরি বিভাগের কর্মকর্তাদের মতে,  গোলাগুলির কারণে পরমাণু কমপ্লেক্সটির একটি ভবনের তৃতীয়, চতুর্থ এবং পঞ্চম তলায় আগুন ধরে যায়।

সূত্র: বিবিসি

 

এ বিভাগের অন্যান্য