শাল্লায় সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

মাদ্রাসায় বরাদ্দকৃত মাধ্যমিক স্তরের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ১০ বস্তা বই গোপনে বিক্রিকালে জব্দ করা হয়েছে। বই গুলো বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় হাসিমিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার আব্দুল মন্নান ও অফিস সহকারি কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। ঘটনার তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১ মার্চ) সকালে সরকারি বই বিক্রির খবর পেয়ে শাল্লা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সুপারভাইজার কালিপদ দাস কান্দিগাঁও গ্রাম থেকে বিক্রয় করা বইগুলো উদ্ধার করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,সোমবার রাতের আধাঁরে মাদ্রাসার সুপার ও অফিস সহকারী মিলে ২০১৯-২০২০ ও ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের ৪৮০কেজি বই গোপনে বিক্রি করে দেন এক ফেরিওয়ালার কাছে। সরকারি বই বিক্রির অভিযোগ প্রসঙ্গে ওই মাদ্রাসার সুপার আব্দুল মন্নান বলেন, আমি এই বিষয়ে কিছুই জানিনা। মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি আব্দুস ছাত্তার মিয়ার বলেন,আমি এই বিষয়ে কোনো কিছু জানিনা।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার কালিপদ দাস বলেন, ফেরিওয়ালার কাছে বিনা মূল্যের সরকারি বই বিক্রি করা হয়েছিল সেই বইগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবু তালেব বলেন, আমাকে জানানো হয় সোমবার সরকারি কিছু বই বিক্রি করছে উপজেলার কান্দিগাঁও গ্রামে। পর দিন মঙ্গলবার সকালে বইগুলো জব্দ করা হয়েছে। সরকারি বই কেউ বিক্রি করতে পারবেন না বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য