কোম্পানীগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার দাফনের টাকা আত্মসাত: ইউএনও’র বিরুদ্ধে অভিযোগ

সিলেটের সময় ডেস্ক ঃ

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং এর দুর্ব্যবহার ও মৃত মুক্তিযোদ্ধার দাফন কাফনের টাকা আত্মসাতের বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে ডিসি বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন এক মৃত মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী।

রবিবার সিলেটের জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পাড়ুয়া নোয়াগাঁও গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতলিবের স্ত্রী মোছাঃ ময়মনা খাতুন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, ২০২১ সালের জুন মাসের ১৭ তারিখ বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. মতলিব মারা যান। তাঁর মৃত্যুর পর সরকার থেকে দাফন কাফন বাবদ যে টাকা দেওয়া হয় তা তিনি ও তাঁর পরিবারের কেউ পায়নি। কিন্তু কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন থেকে জানতে পারেন, ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে কে বা কারা টিপসই দিয়ে ওই টাকা উত্তোলন করে নিয়েছে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি এ ব্যাপারে অবগত করতে তিনি ও তাঁর ছেলে আলমগীর আহমদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে গেলে বিষয়টি অবগত করা মাত্রই নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং উত্তেজিত হয়ে খারাপ আচরণ করে অফিস থেকে বের করে দেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতলিবের ছেলে আলমগীর আহমদ বলেন, আমার বাবা মারা যাওয়ার পরে সরকার যে দাফন-কাফনের টাকা দেয় সেই টাকা আমরা পাইনি। ইউএনও অফিস থেকে জানতে পারি আমার বাবার দাফন-কাফনের টাকা টিপসই দিয়ে কে উঠিয়ে নিয়েছে। এই টাকা আমাদেরকে না দিয়ে কাকে দেওয়া হয়েছে বিষয়টি জানার জন্য আমার মাকে নিয়ে আমি ইউএনও অফিসে গিয়েছিলাম। অফিসে গিয়ে চেয়ারে বসার পর তিনি জিজ্ঞেস করলেন কি কারণে অফিসে গেলাম। আমরা বিষয়টি বলতেই তিনি বলেন, তোমাদের কোন কমনসেন্স নেই। কখন অফিসে ঢুকতে হয় তা জান না। অফিসে কত গোপনীয় কাজ থাকতে পারে তা না জেনেই অফিসে ঢুকে চেয়ারেও বসে গেলে। এরপর উচ্চস্বরে ধমক দিয়ে তিনি অফিস থেকে বের করে দেন।

এ বিভাগের অন্যান্য