হার্শা ভোগলের দশকসেরা টেস্ট একাদশে সাকিব

করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ সালের অধিকাংশ সময়ই মাঠে গড়ায়নি বল। বাতিল হয়েছে অনেক সিরিজ ও টুর্নামেন্ট।

এর পরও বায়ো বাবল সুরক্ষায় অল্পসংখ্যক যে ম্যাচ হয়েছে, তার পরিসংখ্যান টেনেই বছরের সেরা একাদশ বাছাই করেছেন অনেকে।

তবে এত কমসংখ্যক ম্যাচ নিয়ে বর্ষসেরা টেস্ট একাদশ বাছাইয়ে রাজি নন বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ক্রিকেট বিশ্লেষক হার্শা ভোগলে।

তবে তিনি বেছে নিয়েছেন দশকসেরার পরিসংখ্যান। অর্থাৎ ১ জানুয়ারি ২০১১ থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত সময়ের পারফরম্যান্সের বিচারে টেস্ট একাদশ গড়লেন তিনি।

যেখানে জায়গা পেয়েছে একসময়ের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান।

ক্রিকবাজের একটি ভিডিও সাক্ষাৎকারে নিজের দশকসেরা টেস্ট একাদশের খেলোয়াড়দের নাম জানান হার্শা।

নিজের দশকসেরা টেস্ট একাদশে প্রথম ছয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ভোগলে বেছে নিয়েছেন ইংল্যান্ডের অ্যালিস্টার কুক, অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভ স্মিথ, শ্রীলংকার কুমার সাঙ্গাকারা, ভারতের বিরাট কোহলি, দ. আফ্রিকার এবি ডি ভিলিয়ার্স। উইকেটরক্ষক হিসেবে তার পছন্দ দ. আফ্রিকার ডি ভিলিয়ার্স।

এর পর সাত নম্বরে অলরাউন্ডার বাছাই করতে গিয়ে ভোগলের পছন্দ সাকিব আল হাসান ও রবিন্দ্র জাদেজা। বেন স্টোকস ও জেসন হোল্ডারকে রাখেননি সে তালিকায়।

তবে সাকিব ও জাদেজার মধ্যে থেকে বাছাইয়ে দীর্ঘদিন অলরাউন্ডার র্যাং কিংয়ের শীর্ষে থাকা বাংলাদেশের ক্রিকেটের পোস্টার বয়কেই পছন্দ করলেন তিনি।

এ বিষয়ে হার্শা ভোগলে বলেন, ‘ছয় ব্যাটসম্যান থাকায় আপনি বোলিং পরিসংখ্যান দিয়ে জাদেজাকে নেয়ার কথা বলতে পারেন। কারণ সাকিবের চেয়ে জাদেজা এগিয়ে আছে। তবে এদের মধ্যে যাকেই নেয়া হোক, সে খেলবে পঞ্চম বোলার হিসেবে, তাই ব্যাটিংটাই এখানে বেশি মুখ্য। তাই আমি সাকিবকেই সাত নম্বরে রেখেছি।’

একাদশের এই টিমে অধিনায়কের প্রসঙ্গই আনেননি ভোগলে। হার্শা ভোগলের দশকসেরা টেস্ট একাদশ।
অ্যালিস্টার কুক (ইংল্যান্ড) – ১৭৭ ইনিংসে ৭৫৩১ রান, সেঞ্চুরি ১৮, ফিফটি ৩৩
ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া) – ১৫৫ ইনিংসে ৭২৪৪ রান, সেঞ্চুরি ২৪, ফিফটি ৩০
কুমার সাঙ্গাকারা (শ্রীলংকা) – ৭৭ ইনিংসে ৪১৫৬ রান, সেঞ্চুরি ১৪, ফিফটি ১৮
বিরাট কোহলি (ভারত) – ১৪৭ ইনিংসে ৭৩১৮ রান, সেঞ্চুরি ২৭, ফিফটি ২৩
স্টিভেন স্মিথ (অস্ট্রেলিয়া) – ১২৫ ইনিংসে ৭০৪২ রান, সেঞ্চুরি ২৬, ফিফটি ২৮
এবি ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা) – ৮০ ইনিংসে ৪০৬৩ রান, সেঞ্চুরি ১০, ফিফটি ২৩
সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ) – ৩৫ ম্যাচে ২৬৮৩ রান ও ১৩৫ উইকেট
রবিচন্দ্রন অশ্বিন (ভারত) – ৭২ ম্যাচে ৩৭০ উইকেট
প্যাট কামিনস (অস্ট্রেলিয়া) – ৩১ ম্যাচে ১৫০ উইকেট
ডেল স্টেইন (দক্ষিণ আফ্রিকা) – ৪৮ ম্যাচে ২০৭ উইকেট
জিমি অ্যান্ডারসন (ইংল্যান্ড)- ১০০ ম্যাচে ৩৯৫ উইকেট

এ বিভাগের অন্যান্য