আ’লীগ বিএনপির দুই মেয়র প্রার্থীই জোড়া খুনের আসামি

বগুড়ার আসন্ন সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগের আশরাফুল ইসলাম মন্টু ও বিএনপির বর্তমান মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টো জোড়া খুন মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি।

আলোচিত সান্তাহার ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম ও অটো রিকশা শ্রমিক নেতা সোহরাব হোসেন হত্যা মামলার আসামিরা নির্বাচনে অংশ নেয়ায় জনগণের মাঝে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। তবে দল থেকে প্রার্থীতা দেয়ায় কেউ প্রকাশ্যে মন্তব্য করতে পারছেন না।

দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১৬ জানুয়ারি এ পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতা আশরাফুল ইসলাম মন্টু ২০১০ সালে সান্তাহার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০১৫ সালে সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থী শ্রমিক লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম রাজাকে পরাজিত করে বিএনপি প্রার্থী তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টো মেয়র হন।

২০১০ সালের নির্বাচনেও তিনি (ভুট্টো) আওয়ামী লীগ প্রার্থী গোলাম মোরশেদকে পরাজিত করে মেয়র হয়েছিলেন। ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারি দুপুরে প্রকাশ্যে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় আওয়ামী লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম রাজার মেজো ভাই সান্তাহার ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলামকে। হামলায় গুরুতর আহত অটো রিকশা চালক সোহরাব হোসেন দুই দিন পর হাসপাতালে মারা যান।

এ জোড়া খুনের মামলায় বিএনপি প্রার্থী ভুট্টো ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী মন্টুকে হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে আসামি করা হয়। পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দিয়েছে। বিচারাধীন ওই মামলা থেকে বর্তমানে দুইজনই জামিনে আছেন। মন্টুকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল। সম্প্রতি ঊর্ধ্বতন নেতারা তাকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেন। ভুট্টোর বিরুদ্ধে আরও কয়েকটি মামলা রয়েছে।

সান্তাহার পৌর নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী (ধানের শীষ) বর্তমান মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টো জোড়া খুনের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে চার্জশিট হওয়ার কথা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রের এ মামলায় তিনি জামিনে আছেন।

অপরদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী (নৌকা) আশরাফুল ইসলাম মন্টুকে ফোনে না পাওয়ায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

তবে আদমদীঘি থানার ওসি জালাল উদ্দিন জানিয়েছেন, আশরাফুল ইসলাম মন্টু জোড়া হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি।

এদিকে যুবলীগ নেতা শফিকুল ইসলাম ও অটোরিকশাচালক সোহরাব হোসেন হত্যা মামলার আসামিরা মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার সুযোগ লাভ করায় উভয় দলের সাধারণ নেতাকর্মীদের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। তবে দলীয় শাস্তির ভয়ে কেউ প্রকাশ্যে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হচ্ছেন না।

এ বিভাগের অন্যান্য