বউ থাকল বাপের বাড়ি, বর-কনে পক্ষকে জরিমানা

ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল এক স্কুলছাত্রী। এসময় বর ও কনেপক্ষকে জরিমানা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে জাল জন্মসনদ বানিয়ে সংরক্ষণ করায় কনের চাচাকে তিনদিনের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, দাগনভূঞা পৌর শহরের একটি কমিউনিটি সেন্টারে দাগনভূঞা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর সঙ্গে দাগনভূঞা পৌরসভার এক ছেলের বাল্যবিয়ের আয়োজন করা হয়।

খবর পেয়ে দুপুরে কমিউনিটি সেন্টারে যান উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হাসান।

পরে তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে কনে ও বরের অভিভাবকদের জরিমানা ও জাল জন্ম নিবন্ধন সনদ বানিয়ে সংরক্ষণ করার অপরাধে কনের চাচাকে তিনদিনের কারাদণ্ডের আদেশ দেন। বর পক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আর কনে পক্ষকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রবিউল হাসান বলেন, কনের ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে না দিয়ে পড়ালেখা চালিয়ে নিয়ে যাবে বলে মুচলেকা দিয়েছে উভয় পক্ষ।

বাল্যবিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসন সদা সচেষ্ট রয়েছে। সামাজিক এই ব্যাধি নিরোধে সবার সচেতন হওয়া জরুরি।

এ বিভাগের অন্যান্য