দেশে করোনা আক্রান্তদের ১১ শতাংশই স্বাস্থ্যকর্মী

দেশে করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের মধ্যে প্রায় ১১ শতাংশ স্বাস্থ্যকর্মী। গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ)।

দেশে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি প্রথম শনাক্ত হয় ৮ মার্চ। এর পর থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ হাজার ৬৭৬ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১৬০ জনের।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনা যুদ্ধের সম্মুখ সারির যোদ্ধা চিকিৎসক, নার্স, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট সহ সেবাদানকারীগণ আশঙ্কাজনক ভাবে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। এ পর্যন্ত ৮৮১ জন স্বাস্থ্যকর্মীর করোনা শনাক্ত হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে চিকিৎসক ৩৯২ জন, নার্স ১৯১ জন এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী ২৯৮ জন। বাংলাদেশে মোট সংক্রমিত হয়েছেন ৭ হাজার ৬৬৭ জন। অর্থাৎ মোট সংক্রমণের ১১ শতাংশই স্বাস্থ্যকর্মী।

সংগঠনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও মহাসচিব ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, চিকিৎসক ও চিকিৎসা সেবা দানকারী ব্যক্তিরা এই হারে আক্রান্ত হতে থাকলে আগামীতে চিকিৎসাসেবা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়তে পারে। এই প্রেক্ষাপটে বিএমএ’র পক্ষ থেকে সরকারের কাছে তিনটি প্রস্তাবনা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবী জানানো হয়।

সেগুলো হলো, দ্রুততম সময়ের মধ্যে কোভিড হাসপাতালে নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স সহ সকল স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য সঠিক মানের পিপিই, এন-৯৫ বা এর সমমানের মাস্ক প্রদান, নন কোভিড হাসপাতালের প্রবেশদ্বারে ট্রায়াজ সিস্টেম চালু করে সেখানে কর্মরত সকল চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীদের উপযুক্ত পিপিই, এন-৯৫ বা সমমানের মাক্স প্রদান নিশ্চিত করা, সকল সরকারী বেসরকারী হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের আবাসন, প্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ হাসপাতালে যাতায়াতের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা।

এ বিভাগের অন্যান্য