করোনা থেকে বাঁচতে ‘কোরআন-সুন্নাহর’ আলোকে যে পরামর্শ দিলেন আল্লামা শফী

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বের দেশে দেশে মহামারি আকার ধারণ করছে করোনা ভাইরাস। প্রতিদিনই মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। বাড়ছে আতঙ্ক, ঝুঁকি ও নিরাপত্তাহীনতা। এমনকি করোনার হানায় বৈশ্বিক অর্থনীতিতে মন্দাভাব দেখা দিতে শুরু করেছে। ধস নেমেছে শেয়ারবাজারে। বাংলাদেশেও শনাক্ত হয়েছে এই মারণ ভাইরাস। বিশ্বের প্রায় ১১৫টি দেশে এরইমধ্যে করোনা ভাইরাস হানা দিয়েছে। তাতে ৪ হাজারেরও বেশি মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন লাখ লাখ মানুষ। আতঙ্কে দিন কাটছে তামাম বিশ্ববাসীর।

তবে করোনা নিয়ে খুব বেশি আতঙ্কিত না হয়ে এ ভাইরাস থেকে বাঁচতে ‘কোরআন-সুন্নাহর’ আলোকে ৫টি পরামর্শ দিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমীর শাহ আহমদ শফী।

হেফাজতে ইসলামের প্রচার সম্পাদক আনাস মাদানি স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে করোনা প্রতিরোধে শফীর ৫টি পরামর্শের কথা জানানো হয়।

পরামর্শ ৫টি হলো-
১. ধৈর্যধারণ, আল্লাহর ওপর বিশ্বাস আরও সুদৃঢ় করা ও আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা।

২. বুখারি শরীফের ৫৩৯৬ নম্বর হাদিস আমলে নিয়ে কোথাও মহামারি কিংবা সংক্রমণ ব্যাধি দেখা দিলে ওই জায়গায় গমন ও প্রস্থান বিষয়ে সতর্কতা ও প্রয়োজনে কড়াকড়ি আরোপ করা।

৩. মসজিদে ও ঘরে সম্মিলিত কিংবা একাকী দোয়ার আমল করা। আল্লাহর কাছে সমস্ত অপরাধ ও পাপ থেকে ক্ষমতা চাওয়া ও করোনা ভাইরাসসহ সকল প্রকার রোগ থেকে পরিত্রাণ চাওয়া। কান্না বিজড়িত দোয়া আল্লাহর আজাব কমাতে পারে।

৪. প্রত্যেক মসজিদে বুধবার (১১ মার্চ) ফজর থেকে কুনুতে নাজেলা পড়া। এ পরামর্শ দিয়ে শফী বলেছেন, আরবেন বিভিন্ন দেশের মানুষ মসজিদে যাচ্ছে না। জুমার নামাজে অংশ নিচ্ছে না। এটা অনুচিত ও গর্হিত কাজ। যে আল্লাহ এ রোগ দিয়েছেন, তার কাছেই মুক্তি চাওয়াই প্রকৃত মুমিনের কাজ। তাই মসজিদে মসজিদে কুনুতে নাজেলার আমল করা হোক।

৫. সুন্নাহসম্মতভাবে নিজেকে সর্বদা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, জীবাণুমুক্ত রাখা, দুই হাত সবসময় ভালো করে ধোয়ার পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি ময়লা আবর্জনার মাধ্যমে কোনও ব্যাধি যেন না ছড়ায় সেদিকে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বনের কথাও বলেছেন আল্লামা শফী।

করোনা ভাইরাস প্রসঙ্গে শফী মনে করেন, বিভিন্ন সময় আল্লাহ বান্দাদের পরীক্ষা করতে এমনটি করে থাকেন। পৃথিবীতে মহামারি কিংবা ভাইরাস নতুন কিছু নয়। বিভিন্ন শতাব্দিতে বিশ্বজুড়ে এমন ভাইরাস আগেও ছড়িয়েছিল। রাসূলের সময়েরও এমন মহামারি রোগ ছড়িয়েছিল। মানবতার মুক্তিদূত রাসূর নিজে এর সমাধান দিয়ে গেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য