বিয়ানীবাজারে সেতুর অভাবে দুর্ভোগে অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ

নিউজ ডেস্ক: সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার তিলপাড়া ইউনিয়ন ও গোলাপগঞ্জ উপজেলার মধ্যে দিয়ে অতিবাহিত বরুরদল নদীতে একটি সেতুর অভাবে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তিনটি গ্রামের প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক বাসিন্দাদের

যে-কয়টি এলাকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সেগুলো হলো বিয়ানীবাজার উপজেলার বিবিরাই, বিলবাড়ি ও কালাইন-এ তিন গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী বড়লেখা ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা।

এর ফলে উপজেলার অন্যান্য এলাকার চেয়ে অনেকটা পিছিয়ে রয়েছে এ তিন গ্রামের সামগ্রিক উন্নয়ন। তাছাড়া সেতু সংযোগ না থাকায় জেলা ও উপজেলা সদরের সাথে এ স্থানীয়দের যোগাযোগের ক্ষেত্রে দেখা দিয়েছে চরম দুর্ভোগ।

জানা যায়, উপজেলার সীমান্ত ঘেঁষা বরুরদল নদীর ওই অংশে গ্রামবাসী নিজ উদ্যোগে যাতায়াতের জন্য বাঁশের সাঁকো তৈরি করেছেন। এ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন কয়েক শ মানুষ পারাপার হন। তবে মহিলা ও স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েন। সাঁকো পারাপারে প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা। তাছাড়া জেলা শহর সিলেট যাওয়ার অন্যতম সহজ মাধ্যম হওয়ায় এই সড়ক দিয়ে সাধারণ মানুষের যাতায়াত বেশি। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে নিমিষেই নদীসহ আশপাশ এলাকা তলিয়ে যাওয়ার কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। বর্তমান সরকার ক্ষমতার আসার পর বিয়ানীবাজার উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও বিবিরাই, বিলবাড়ি ও কালাইন গ্রামসহ আশপাশ এলাকায় তেমন উন্নয়ন না হওয়ায় ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী।

তিলপাড়া ইউপি সদস্য সুয়াইব উদ্দিন জানান, বরুরদল নদীর ওপর সেতু নির্মাণ হলে যোগাযোগসহ এলাকার সর্বস্থরের মানুষ ব্যবসা-বাণিজ্য, স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রী ও চাকরীজীবীদের চলাচলে অনেক বাধা দূর হবে। ফলে নানান রকম ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাবে এ অঞ্চলের অধিবাসীরা।

এব্যাপারে তিলপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এ অঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে বরুরদল নদীতে সেতু নির্মাণের ব্যাপারে একাধিকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেও কোনো ফল পাইনি। তবে এক্ষেত্রে আমি আবারো স্থানীয় এলাকাবাসী, মুরব্বিবৃন্দ ও স্থানীয় ইউপি সদস্যের সাথে আলাপ করে আবারোও নতুনভাবে আবেদন করার চেষ্টা করবো।’

এ বিভাগের অন্যান্য