২৬৫ রানে অল আউট জিম্বাবুয়ে

নিউজ ডেস্ক: একমাত্র টেস্টে আগের দিনই মঞ্চটা প্রস্তুত করে রেখেছিল বাংলাদেশ। দিনের শেষভাগে সেঞ্চুরি করা ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিনকে বিদায় দিয়েছেন নাঈম। ফলে দ্বিতীয় দিন স্বাগতিকদের লক্ষ্য ছিল যত দ্রুত সম্ভব জিম্বাবুয়েকে অলআউট করে দেওয়া। সেই লক্ষ্যে সফলও হয়েছে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়েকে তারা গুটিয়ে দিয়েছে ২৬৫ রানে।

মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় দিনটা সাবধানি ভঙ্গিতে শুরু করেছিল জিম্বাবুয়ে। দিনের প্রথম ওভারটা করেন আবু জায়েদ। পরের ওভারে আসেন তাইজুল ইসলাম। দুই ব্যাটসম্যান ডোনাল্ড তিরিপানো ও রেজিস চাকাভা সাবধানেই খেলতে থাকেন তাদের।

তবে পেসার রাহী সুইং পেতে থাকেন খুব। সেই সুইংয়েই দিনের শুরুতে আঘাতটা হানেন তিনি। তার বল তিরিপানোর ব্যাটের কোনায় লেগে জমা পড়ে উইকেটকিপার লিটন দাসের হাতে। ৩১ বলে ৮ রানে ফিরেছেন তিরিপানো।

এর পর নতুন নামা এনডিলোভুকেও থিতু হতে দেননি রাহী। লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে তাকে রানের খাতা খোলবার আগেই বিদায় দিয়েছেন। রাহীর পর এই টেস্টে প্রথমবারের মতো উইকেট শিকার করেন তাইজুল। বাঁহাতি স্পিনার লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেছেন টিশুমাকে (০)।

চাকাভা অপরপ্রান্তে টিকে দ্রুত কিছু রান তোলার চেষ্টা করেছেন। এই দ্রুত গতিতে রান তোলার চেষ্টায় উড়িয়ে মারতে গিয়েই তালুবন্দী হয়েছেন তাইজুলের বলে। নাঈম হাসান তার ক্যাচটি নিলে ২৬৫ রানেই শেষ হয় জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংস। চাকাভা ফিরেছেন ৩০ রান করে। দ্বিতীয় দিন প্রায় দেড় ঘণ্টার মতো টিকেছিল জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ।

আগের দিন অবশ্য পুরো ৯০ ওভার ব্যাট করেছে জিম্বাবুয়ে। ৬ উইকেটে করেছে ২২৮ রান। দিনটা হয়তো স্বস্তি নিয়েই মাঠ ছাড়তে পারতো সফরকারীরা। ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন সেঞ্চুরি তুলে নিলেও তাকে দিনের শেষভাগে বিদায় দিয়েছেন নাঈম হাসান। ব্যাটিং বান্ধব উইকেটে এই অফ স্পিনারের দারুণ স্পিনেই জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ বেশি স্থায়ী হতে পারেনি। নাঈম প্রথম দিন নিয়েছেন ৪ উইকেট। দুই দিন মিলে রাহী নিয়েছেন ৪টি। আর দুটি নিয়েছেন তাইজুল।

এ বিভাগের অন্যান্য