অটোরিকশায় তুলে ছিনতাই: আটক ২

নিউজ ডেস্ক: সিলেট নগরীতে অটোরিকশায় তুলে যাত্রী ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়েছে অসহনীয়ভাবে। প্রায়ই ছিনতাইকারীদের কবলে পড়ে সর্বস্ব হারাচ্ছেন অনেক অটোরিকশা যাত্রী। এ অবস্থায় গত ১১ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টার দিকে মদিনা মার্কেট এলাকায় ছিনতাইয়ের ঘটনার সাথে জড়িত ২ ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার দিবাগত রাতে কোতয়ালী থানার সহকারী কমিশনার নির্মলেন্দু চক্রবর্তীর নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে জালালাবাদ থানাধীন নয়াবাজার ও বিমানবন্দর থানাধীন মজুমদারী এলাকা থেকে তাদের আটক করে।

আটক ২ জন হলো- আখালিয়া, নয়াবাজার এলাকার ময়দুর মিয়ার ছেলে ইয়াসীন (৩৫) ও জগন্নাথপুর উপজেলার চানপুর গ্রামের বজলু মিয়ার ছেলে এনামুল হক সাজন। এসময় তাদের কাছ থেকে একটি প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়।

পুলিশ জানায়- গত ১১ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টার দিকে ছাতক এলাকার দুই লন্ডন প্রবাসী মদিনা মার্কেটে বাজার করতে আসলে অজ্ঞাতনামা তিনজন সিএনজিচালিত অটোরিকশা আরোহী তাদেরকে সিএনজিতে তুলে ছুরির ভয় দেখিয়ে প্রথমে শামীমাবাদ রোড এলাকায় নিয়ে যায়। সেখান থেকে একটি প্রাইভেট কারযোগে বিভিন্ন এলাকা ঘুরিয়ে টিলাগড় এলাকায় একটি পাহাড়ের উপর আটকিয়ে তাদের কাছে থাকা ডলার, টাকা, স্বর্ণ, মোবাইল ফোন নিয়ে যায় এবং তাদের আত্মীয়-স্বজনদের নিকট থেকে ৬ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। তারা ভিকটিমের পক্ষকে দুইটা বিকাশ নাম্বারও দেয়। এসময় ভিকটিমের পক্ষ থেকে দুইটি বিকাশ নাম্বারে তিশ হাজার টাকা প্রদান করে। পরে আর কোনো টাকা পয়সা না পেয়ে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাত ১.৪৫ টার সময় তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়।

ছিনতাইয়ের কবলে পড়া ২ যুবক পরের দিন কোতয়ালী থানায় জিডি করে। জিডি করার পর এসি নির্মলেন্দু চক্রবর্ত্তী দুইটি বিকাশ নাম্বার ট্র্যাকিং করে নয়াবাজার থেকে ইয়াসীনকে আটক করা হয়। তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী মজুমদারী এলাকা থেকে ছিনতাইকারী এনামুল হক সাজন নামে আরেকজনকে আটক করে পুলিশ। তাদের দেয়া তথ্য মতে অপহরন কাজে ব্যবহৃত সাদা একটি প্রাইভেট কার উদ্ধার করা হয়।

তাদের সাথে আরো জড়িত থাকা ৫ জনের নাম ঠিকানা পাওয়া গেছে উল্লেখ করে তাদেরকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিজান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন এসি নির্মলেন্দু চক্রবর্ত্তী।

এ বিভাগের অন্যান্য