ফেসবুকের জন্য ১০ বছর পর মা-বাবাকে ফিরে পেল শফিক

নিউজ ডেস্ক : ফেসবুকের কল্যাণে দীর্ঘ ১০ বছর পর ফিরে পেলেন বাবা-মা তার প্রিয় সন্তান শফিককে। ছেলে শফিক ৭ বছর বয়সে হারিয়ে যায়। বহু খোঁজাখুঁজির পরেও ছেলেকে না পেয়ে শফিকের পরিবার ছিলেন হতাশায়। এখন শফিককে পেয়ে পরিবারে বইছে আনন্দের বন্যা।

সোমবার রাতে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার পুরানগাঁও গ্রাম থেকে ছেলে শফিককে নিয়ে তার বাড়ির পথে রওয়ানা করেন তার পরিবার। এর আগে, রোববার দুপুরে মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার পুরানগাঁও গ্রামের আশ্রয়দাতা কাবুল মিয়ার বাড়িতে আসেন শফিকের পরিবার।

জানা যায়, বাড়ি থেকে বের হয়ে শফিক ঢাকাগামী একটি গাড়িতে উঠে ঘুমিয়ে পড়েন। পরে ঘুম ভাঙলে গাড়ি থেকে নেমে রাজধানী ঢাকার রাস্তার পাশে কাঁদতে থাকে শফিক। পরে ব্যবসায়ী কাবুল মিয়া তাকে (শফিক) কুড়িয়ে পান। তখন ছোট শফিক নাম-ঠিকানা কিছুই বলতে পারেননি। কাবুল মিয়ার পরিবারের আট মেয়ে ও দুই ছেলের সঙ্গেই বেড়ে ওঠে শফিক। ১০ বছর পেরিয়ে শফিক এখন সতের বছরের তরুণ।

সম্প্রতি শ্রীমঙ্গল এলাকার শেখ জসিম নামের এক সমাজকর্মী শফিকের হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি জানতে পারেন। শফিকের মা-বাবাকে ফিরে পেতে ফেসবুক লাইভে এসে শেখ জসিম এ কাহিনী বর্ণনা করেন। আর এ ফেসবুক লাইভ হওয়ার পর বিষয়টি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়ে।

এর মধ্যে ফেসবুক লাইভের সূত্র ধরে কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার সিদলা ইউনিয়নের ধূলিহর গ্রাম থেকে কিছু লোক জসিমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তারা শফিককে চিনেন বলে জানান। এভাবেই শফিকের পরিবারের খোঁজ মিলে। পরে ফেসবুক লাইভ দেখে শফিকের বাবা-মা যোগাযোগ করেন। তখন শফিক জানতে পারে যে, তার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলায় সিদলা ইউনিয়নের ধূলিহর গ্রামে। তার বাবা শহীদ মিয়া এবং মা সুফিয়া খাতুন।

এদিকে, শফিককে খুঁজে পাওয়ার পর স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও শফিকের পরিবারের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেন। এর মধ্যে হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন কবির ও স্থানীয় সিদলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সিরাজ উদ্দিন রয়েছেন। এছাড়াও মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের সিন্দুরখান ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল আল হেলালের ভূমিকাও ছিলো প্রশংসনীয়।

এ বিভাগের অন্যান্য