সিলেটের খেলোয়াড়রা ইংরেজি না বুঝার কারণে হতাশ কোচ

নিউজ ডেস্ক: বঙ্গবন্ধু বিপিএলে আটটি ম্যাচ খেলে মাত্র একটিতে জয় পেয়েছে সিলেট থান্ডার। স্বভাবসুলভ পয়েন্ট টেবিলে দলটির অবস্থান একেবারে তলানিতে। এবার দলটির দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ হার্শেল গিবস জানালেন, দলের অধিকাংশ খেলোয়াড় ইংরেজি বোঝেন না।

বিপিএলের মানের কথা বলতে গিয়ে আজ বুধবার সিলেটে এ কথা জানান গিবস। তিনি বলেন, ‘দলের অনেকেই ইংরেজি বোঝে না। ফলে আমি তাদের যেটা বলি সেটা তারা নিতে পারছে না, প্রয়োগও হচ্ছে না। এটা হতাশার, তাদের মাঠের পরিস্থিতি বুঝে খেলার সক্ষম হতে হবে। ক্রিকেট টেম্পারমেন্টের খেলা, আমার মনে হয় এ জায়গায় আমি তাদের বুঝাতে ব্যর্থ।’

গিবস উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে বলেন, ‘অন্যভাবে নেওয়ার প্রয়োজন নেই, আমি উদাহরণ হিসেবে রুবেলের কথা বলি, সে ১৪ রান করেছে প্রথম ২৮ বলে। স্ট্রেটিজিক টাইম আউটের সময় আমি মাঠে যাই এবং তাকে বলি কী হচ্ছে? এটা দুঃখজনক, সে নিজে বুঝতে পারছে না কী করছে।’

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মিলিয়ে তিন পর্বের খেলা শেষ। চতুর্থ পর্বের খেলা শুরু হবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে সিলেটে। আট ম্যাচের মধ্যে সাত ম্যাচেই হেরে প্লে-অফে অনিশ্চিত হয়ে গেছে সিলেট।

দল নিয়ে কোচ আরও বলেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত আমি ড্রাফটের সময় ছিলাম না। আমি মূলত হস্তান্তরিত একটি স্কোয়াড পেয়েছি। আমি যদি সেখানে থাকতাম তবে দুজন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান, দুজন বাঁহাতি পেসার নিতাম। আমাকে শুধু স্কোয়াডটা দেওয়া হয়েছে, কোচ হিসেবে প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলার কোন রসদ আমার কাছে নেই।’

সিলেট থান্ডার স্কোয়াড : মোসাদ্দেক হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, নাজমুল ইসলাম অপু, সোহাগ গাজী, রনি তালুকদার, নাঈম হাসান, দেলোয়ার হোসেন, মনির হোসেন খান, রুবেল মিয়া ও এবাদত হোসেন। শেরফান রাদারফোর্ড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), শফিকউল্লাহ শাফাক (আফগানিস্তান), নাভীন উল হক (আফগানিস্তান), জীবন মেন্ডিস (শ্রীলঙ্কা) শেলডন কটরেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও মোহাম্মদ সামি (পাকিস্তান)।

এ বিভাগের অন্যান্য