সুনামগঞ্জে সাংসদ রতনের সেই ঘনিষ্ঠ বন্ধু গ্রেপ্তার

নিউজ ডেস্ক: সাজাপ্রাপ্ত হয়েও বীরদর্পে ঘুরে বেড়ানো সুনামগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতনের সেই ঘনিষ্ঠ বন্ধু অমরেশ চৌধুরীকে অবশেষে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ধর্মপাশার মধ্যনগর থানা সদরের বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অমরেশ ধর্মপাশার মধ্যনগর থানা সদর বাজারের প্রয়াত অনন্ত চৌধুরীর ছেলে। তিনি মধ্যনগর বাজার কমিটির বর্তমান সভাপতি ও কৃষক দলের সাবেক সভাপতি ছিলেন।

মধ্যনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম নেওয়াজ গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অমরেশকে পুলিশ গ্রেপ্তারের পর পরই থানা হাজত থেকে তাকে ছাড়িয়ে নিতে সাংসদ রতনের অনুসারীরা থানা ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে তদবিরে নামেন।

পুলিশ ও মামলার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২৫ অক্টোবর সুনামগঞ্জ জেলা যুগ্ম জজ (প্রথম) আদালতের বিচারক প্রতারণামূলক অর্থ আত্মসাতের দায়ে অমরেশকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন। এছাড়া প্রতারিত ব্যবসায়ীকে ১৩ লাখ টাকা পরিশোধের নির্দেশ দেয়া হয়। অমরেশ পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

সুনামগঞ্জ পৌর শহরের মুক্তারপাড়ার সাহাব উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে ব্যবসায়ীক লেনদেন সংক্রান্ত বিষয়ে ২০১৬ সালের ৭ এপ্রিল অমরেশ ১৩ লাখ টাকার চেক প্রদান করেন। পরবর্তীতে ওই চেক নগদায়নের জন্য বাংকে জমা দিলে তা পর পর তিনবার ডিজওনার হয়। এ নিয়ে ওই ব্যবসায়ী আদালতে মামলা করেন।

ব্যবসায়ী সাহাব উদ্দিন বলেন, আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পর সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানা ও মধ্যনগর থানায় অমরেশের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা প্রেরণ করা হয়। কিন্তু সাংসদ রতনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হওয়ায় বীরদর্পে ঘুরে বেড়ালেও পুলিশ অমরেশকে গ্রেপ্তার করতে নানামুখী টালবাহানা করতে থাকে।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালের ৯ ডিসেম্বর মধ্যনগর থানা চত্বরে পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের একজন উপমন্ত্রীর উপস্থিতিতে ছয় মাসের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি অমরেশ চৌধুরীকে মঞ্চে নিয়ে সমাবেশ করেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের এমপি রতন।

এ বিভাগের অন্যান্য