শাবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি, আটক ৫

নিউজ ডেস্ক:  শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাইল ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষা হলে প্রবেশের দায়ে ৫ পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। চারটি পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে তাদেরকে আটকের পর পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। আটককৃতদের কাছে থেকে ক্যালকুলেটার, সিমসহ বিভিন্ন ডিজিটাল ডিভাইস উদ্ধার করা হয়েছে।

আটককৃতদের একজন বগুড়ার বৃন্দাবন পাড়ার আব্দুল গফুরের ছেলে মাহমুদুল হাসান (১৮)। সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে আটক করা হয়। বাকী আটককৃতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

তবে শাবির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মোছাদ্দেক আহমেদ চৌধুরী জালিয়াতিতে আটককৃত সবাই একসাথে বগুড়া থেকে পরীক্ষা দিতে এসেছেন।

জানা গেছে, শনিবার শাবির ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ছিল। সকাল সাড়ে ৯টায় ‘এ’ ইউনিটে এবং বেলা আড়াইটায় ‘বি’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। উভয় ইউনিটের জন্য কেন্দ্র ছিল ৪৩টি।

ভর্তি পরীক্ষায় চারটি কেন্দ্রে ৫ শিক্ষার্থী ক্যালকুলেটরের মধ্যে সিম ঢুকানো ডিজিটাইল ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষা হলে প্রবেশ করেন। পরীক্ষকদের নজড়ে পড়ার পর তাদের আটক করা হয় বলে জানান মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (গণমাধ্যম) জেদান আল মুসা।

তিনি জানান, মঈন উদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজ থেকে একজন, সিলেট সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ থেকে একজন, সিলেট পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে একজন এবং মদিনা মার্কেটস্থ শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্র থেকে দুই শিক্ষার্থীকে জালিয়াতির ডিজিটাল ডিভাইসসহ আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ক্যালকুলেটরে সিম ব্যবহার করে উত্তর আদান-প্রদান করার চেষ্টাকালে তাদেরকে আটক করা হয়।

এব্যাপারে শাবির প্রক্টর অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ বলেন, আটককৃতদের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শাবির উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদও পাঁচ শিক্ষার্থীকে ডিজিটাল ডিভাইসসহ আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য