সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আরিফ!

বদরুল হোসেন খান কামরান: বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর সিলেট আগমনের ১০০ বছর ফুর্তি উপলক্ষে আগামী ৭ ও ৮ নভেম্বর সিলেটে রবীন্দ্র জয়ন্তী অনুষ্ঠান পালন করতে যাচ্ছে বিতর্কিত উদযাপন কমিটি। কমিটির আহবায়ক সর্বজন শ্রদ্ধেয় সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এখানে আমার কোন মতবিরোধ নেই।আমার বিরোধ সেখানে যে অনুষ্ঠানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রক্ত বহমান বাংলার সফল রাস্ট্র নায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি সেই অনুস্টানের আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব যিনি খুনি জিয়াউর রহমানের দল বি এন পির পৃষ্টপুষক বি এন পির কেন্দ্রীয় সদস্য বি এন পি মনোনীত মেয়ের এবং সব চেয়ে বড় কলংক তিনি আমাদের সাবেক অর্থমন্ত্রী এস এম কিবরিয়া হত্যা মামলার অন্যতম আসামী এই মামলায় দীর্ঘদিন জেলে ছিলেন।যিনি আমাদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে “জাতির জনক ও স্বাধীনতার স্থপতি হিসেবে স্বীকৃতি দেয় না এখনও যিনি খুনি জিয়াউর রহমান কে স্বাধীনতার ঘোষক দাবী করে সেই আরিফুল হক চৌধুরী সেই কমিটির সদস্য সচিব হতে পারে না যদি আরিফুল হক সদস্য সচিব বহাল থাকেন তাহলে এই অনুস্টান কলংকিত ও প্রশ্নবিদ্ধ হবে বলে আমি মনে করি”। অনেকটাই নিরভে এই কমিটি কাজ শুরু করে গত কয়েক মাস থেকে যখন জানাজানি হল তখন সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত সাবেব এর উপস্থিতিতে সদস্য সচিব আরিফুল হক কে নিয়ে প্রশ্ন তুলেন সিলেট এর সংস্কৃতি, সামাজিক, রাজনীতি অঙ্গনে যাকে বরপুত্র বলা হয় আমাদের সকলের শ্রদ্ধেয় সাবেক মেয়র বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র জননেতা বদর উদ্দিন আহমদ কামরান উনার সাথে সে দিন অনেকই একাত্ত্বতাপূষন করেন।সে দিন কমিটির আহবায়ক মুহিত সাহেব কমিটি পূণরায় পরিবর্তন, পরিবর্ধন করবেন ঘোষণা দেন।কিন্তু গতকাল ২১ অক্টোবর মুহিত সাহেব হাফিজ কমপ্লেক্সে আবারও আরিফুল হক কে সদস্য সচিব বহাল রেখে বিতর্কিত কমিটি ঘোষণা করেন।যে কমিটিতে আহবায়ক সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এবং সদস্য সচিব আরেক সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার অন্যতম আসামী আরিফুল হক চৌধুরী। গত কাল ২১ অক্টোবর সাবেক অর্থমন্ত্রীর উপস্থিতিতে যুগ্ন সদস্য সচিব বক্তিতার এক পর্যায়ে বলেন রবীন্দ্র জয়ন্তী অনুষ্ঠানে আগামী ৮ নভেম্বর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়া এ কথা বলার সাথে সাথে উপস্থিত মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক বাবু বিজিত চৌধুরী প্রতিবাদ করেন এই যদি হয় অবস্থা তাহলে আমরা কতটুকই আশা করতে পারি এই অনুস্টানকে নিয়ে আর কতটুকুই সম্মান করতে পারব অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কে।একটি বিষয় গগভীরভাবে খেয়াল করতে হবে কমিটির যুগ্ন সদস্য সচিব খালেদার নামের আগে দেশনেত্রী কথাটা বলতেও ভূল করেননি।লোকে মুখে গতকাল থেকে একটি কথা বলাবলি করতে শুনা যাচ্ছে কার ভিশন বাস্তবায়ন করতে এই অনুস্টানের আয়োজন। আমি সম্মান রেখে বলতে চাই আমরা যারা জাতির জনকের আদর্শ লালন করে যারা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি আসুন এই বিতর্কিত কমিটি সদস্য সচিব ও যুগ্ন সদস্য সচিব এর নেতৃত্বকে ত্যাগ করে এবং বিতর্কিত কমিটি বাতিল কর করতে হবে শ্লোগানমুখর প্রতিবাদ জানাই।এখনও সময় আছে আশা করি গ্রহনযোগ্য একটি কমিটি করে বিতর্কিতদের মূল দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে সর্বজন গ্রহণযোগ্য ব্যক্তিদের নিয়ে অনুস্টান বাস্তবায়ন করা হলে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কে এবং অনুস্টানে প্রধান অতিথি বিশ্বনেত্রী বাংলাদেশের সফল রাস্ট্র নায়ক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে যথাযথ সম্মান করা হবে।

বদরুল হোসেন খান কামরান
যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক
সিলেট মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ।

এ বিভাগের অন্যান্য