রবিবার, ১৩ অক্টো ২০১৯ ০৭:১০ ঘণ্টা

শিক্ষকদের পেশাজীবী রাজনীতি বন্ধ করুন: হানিফ

শিক্ষকদের পেশাজীবী রাজনীতি বন্ধ করুন: হানিফ

নিউজ ডেস্ক: ছাত্র রাজনীতি বন্ধ না করে বরং শিক্ষকরা পেশাজীবী রাজনীতি বন্ধ করার আহ্বান জানালেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।

তিনি বলেন, ‘অনেকে বলছেন ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করার জন্য। কিন্তু আমাদের ছাত্র রাজনীতির গৌরব উজ্জ্বল ভূমিকা আছে। ছাত্র রাজনীতির ভূমিকার কারণেই আমরা দেশে স্বাধীনতা এনেছি। ছাত্ররাজনীতি বন্ধ না করে আপনারা বরং শিক্ষকরা পেশাজীবী রাজনীতি বন্ধ করুন।’

রোববার (১৩ অক্টোবর) সকাল ১১ টায় শ্রীমঙ্গলের পুরাণ বাজারে আয়োজিত উপজেলা শাখা আওয়ামী লীগের ত্রী-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় তিনি আরো বলেন, ‘আপনারা শিক্ষকরা পেশাজীবী রাজনীতি করার কারণে ছাত্রদের কাছ থেকে সম্মান হারাচ্ছেন। আপনাদের দলীয় লেজুড়বিত্তি রাজনীতির কারণে ছাত্রদের উপর থেকে আপনারা নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন। আজকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ভিসি হওয়ার জন্য, বিভিন্ন পদ পদবী পাওয়ার জন্য লেজুড়বিত্তির রাজনীতি করছেন।

বিএনপি প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, ‘বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে বিশ্বাসী ছিলেন না। ১৯৭১ সালে তাকে এক প্রকার জোর করে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করানো হয়েছিলো। তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে ছিলেন পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তার সাথে পাকিস্তানীর সাথে সম্পর্ক ছিলো। ১৯৭৫ সালে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরপরই তার সব কিছু প্রমাণ হয়ে যায়। জিয়াউর রহমান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট এর পর ক্ষমতা দখল করে স্বাধীনতা বিরোধীদের নিয়ে, রাজাকারদের নিয়ে মন্ত্রী সভা গঠন করেন।’

এদিকে দীর্ঘ ১৩ বছর পর অনুষ্ঠিত এই সম্মেলনের শুরুতে দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দরা। পরে সভায় সম্পাদকের প্রতিবেদন পাঠ করেন সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা এম এ মান্নান।

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আছকির মিয়ার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ মান্নান এর সঞ্চালনায় সভার উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমেদ এমপি। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য অধ্যাপক রফিকুর রহমান, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি।

সর্বশেষ সংবাদ

পাঠক

Flag Counter